Equity Value Vs. Enterprise Value Blog Banner

ইক্যুইটি ভেল্যু বনাম এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু: বিস্তারিত আলোচনা

Tasniya JahanPosted by

বিনিয়োগে জগতে নতুন যে কোনো বিনিয়োগকারী বা যিনি টেকনিক্যাল এনালাইসিস ব্যবহার করছেন এমন অভিজ্ঞ বিনিয়োগকারী নিশ্চয়ই লক্ষ্য করেছেন যে, কোনো কোম্পানির মান যাচাইয়ের সময়  দুই প্রকারের মান ব্যবহার করা হয়-

১) ইক্যুইটি ভেল্যু (বাজার মূলধন) এবং

২) এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু (প্রাতিষ্ঠানিক মূল্য)।

যদিও উভয় প্রকার ভেল্যুই কোম্পানির মূল্য নির্ধারণের লকধারনেরব্যবহার করা হলেও এদের গণনা পদ্ধতি আলাদা .এবং কোম্পানির মান সম্পর্কে কিছুটা ভিন্ন মতামত প্রকাশ করে। তবে এটাও সত্য যে, দুটো ভিন্ন মানের কারণে বিনিয়োগকারীরা অনের সময় বিভ্রান্তির সম্মুখীন হয়ে থাকেন।

আজকের ব্লগে আমরা অনেক পেশাদারের জন্য এই বিভ্রান্তির বিষয়টিকে বিস্তারিত ভাবে ব্যাখ্যা করব, অর্থাৎ, দুটি ভেল্যুর (ইক্যুইটি ভেল্যু এবং এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু ) মধ্যে মূল পার্থক্য সম্পর্কে আলোচনা করব।

‘ইক্যুইটি ভেল্যু’ বলতে কোম্পানির শেয়ার হোল্ডার বা ইক্যুইটি মালিকদের শেয়ারের সমন্বিত মূল্যকে বোঝায় এবং ‘এন্টারপ্রাইজ ভ্যালু’ ব্যবসায়ের মোট মূল্যকে বোঝায় যার মধ্যে শেয়ার হোল্ডার এবং ঋণ প্রদানকারীদের সিকিউরিটির মূল্য অন্তর্ভুক্ত।

আরও ভাল করে বোঝানোর জন্য, একটি উদাহরণ  দেয়া হলো- Home Equity

কয়েক সপ্তাহ আগে আমার এক বন্ধু একটি বাড়ি কিনেছিল।

সে তার সব বন্ধুদেরকে এই খুশির সংবাদটি জানালো এবং একটি  পার্টির আয়োজন করল। বন্ধুদেরকে বাড়ি কিনতে মোট কত ব্যয় হয়েছে বলার সময় সে এর সাথে জড়িত বাড়তি খরচ সম্পর্কে জানালো।

বাড়ি কেনার সর্বমোট খরচ, বাড়িটির আসল বিক্রয়মূল্য থেকে ১০ শতাংশ বেশী ছিল।

১০% কেন?

বাড়ি ক্রয়ের ক্ষেত্রে কিছু বাড়তি ব্যয় যেমন- বাড়ির মেরামত, বকেয়া বিল, এর সাথে জড়িত বাধ্যবাধকতা এবং বিভিন্ন নিবন্ধ্ন ব্যয়ের রয়েছে।

তবে, বাড়তি ব্যয়ের পাশাপাশি ভাড়তি লাভও আমার বন্ধুর হয়েছিল। বাড়ির পাশাপাশি সে বাড়িতে থাকা কিছু আসবাবপত্র বিনামূল্যে পেয়েছিল।

এখন আপনারা প্রশ্ন করতে পারেন আমাদের আজকের আলোচনার বিষ্যবস্তুর সাথে এই গল্পটির কি সম্পর্ক?

এখন, ধরা যাক, আপনি একজন টেকনিক্যাল এনালিস্ট এবং কোনো কোম্পানি ক্রয়ের জন্য তার মান মূল্যায়নের কাজে নিয়োজিত হয়েছেন।

এর সাথে বাড়ি ক্রয়ের গল্পের সারমর্মটি বিবেচনা করলে এবং আপনি সহজেই ইক্যুইটি ভেল্যু এবং এন্টারপ্রাইজ ভেল্যুর মধ্যে পার্থক্য পরিষ্কারভাবে বুঝতে পারবেন।

ইক্যুইটির ভেল্যু আপনাকে জানাবে যে কোনও কোম্পানির মূল্য কী এবং এন্টারপ্রাইজ ভেল্যুটি আপনাকে জানায় যে সামগ্রিকভাবে কোনও কোম্পানি অর্জন করতে তার কত ব্যয় হবে?

সুতরাং, আমার বাড়ির ক্রয়ের গল্পে, বাড়ির ক্রয়মূল্য ইক্যুইটি ভেল্যুকে নির্দেশ করে, এবং ক্রয়মূল্যের সাথে ১০% যোগ করএ আমরা বাড়ির এন্টারপ্রাইজ মান নির্ধারণ করতে পারব।

এন্টারপ্রাইজ মান বকেয়া দায়, বিভিন্ন বাধ্যবাধকতা এবং বিনামূল্যে অর্জিত বিভিন্ন সম্পদ যা কোম্পানির একাউন্টে রয়েছে যেমন- নগদ ইত্যাদি অন্তভুক্ত করে কোম্পানির সার্বিক মূল্য নির্ধারণ করবে।

গাণিতিক ভাবে আমরা যদি দেখতে চাই

ইক্যুইটি ভেল্যু = সাধারণ শেয়ারের সংখ্যা X শেয়ারের দাম

অতএব সাধারণ শেয়ারের সমন্বিত মুল্যকেই ইক্যুইটি ভেল্যু অথবা বাজার মূলধন বলা হয়।

যেহেতু একটি পাবলিক লিমিটেড কোম্পানির শেয়ারকেই ঐ কোম্পানির মালিকানার অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, তাই  তাত্ত্বিক অর্থে সম্পূর্ণ কোম্পানির মূল্য , কোম্পানিটির মোট শেয়ারের সংখ্যা এবং প্রতটি শেয়ারের মূল্যের গুণফলের সমান হবে।

এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু= ইক্যুইটি মান – নগদ + ঋণ + মাইনোরিটি ইন্টারেস্ট + অগ্রাধিকার শেয়ার

উদাহরণস্বরূপ, ধরে নেওয়া যাক, আমরা কখগ কোম্পানির মূল্যায়ন করতে চাই। কোম্পানিটির সম্পদ ও দায়ের বিবরণ নিচে অন্তর্ভুক্ত করা হলো-

  • সাধারণ শেয়ারের সংখ্যা-      ১০,০০,০০০
  • বর্তমান শেয়ারের মূল্য- ৫৳
  • মোট নগদ- ৫,০০,০০০৳
  • মোট ঋণ- ১০,০০,০০০৳
  • মাইনোরিটি ইন্টারেস্ট– ৫০,০০০৳
  • অগ্রাধিকার শেয়ার – ৭৫,০০০৳

উপরের প্রদত্ত সূত্রের ভিত্তিতে, আমরা কখগ কোম্পানির এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু বা প্রাতিষ্ঠানিক মূল্য গণনা করতে পারি:

(১০,০০,০০০৳ X ৫৳)- ৫,০০,০০০৳+ ১০,০০,০০০৳+ ৫০,০০০৳+ ৭৫,০০০৳ = ৫৬,২৫,০০০৳

এখন প্রশ্ন উঠতে পারে, আমরা কেন এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু থেকে নগদ বিয়োগ করি?

কোম্পানি মূল্যায়নের ক্ষেত্রে অনিরিক্ত নগদ আমাদের পূর্বের উদাহরণে বাড়ির সাথে বিনামূল্যে প্রাপ্ত আসবাবপত্রের সাদৃশ্য।

তবে একটি দৃষ্টিকোণ থেকে ভাবলে, আসবাবপত্র বাড়ির একটি অংশ হিসাবে বিবেচিত হতে পারে, কারণ এটি বাড়িতে রাখা হয় এবং মালিকের বাসভবনের অংশ হিসেবেই বিবেচনা করা হয়।

তবে আসবাবপত্র স্পষ্টতই এবং স্বতন্ত্রভাবে একটি পৃথক সম্পদ যা বাড়িটির বিক্রয়মূল্যকে কোনোভাবে প্রভাবিত না করে সহজেই সরানো যেতে পারে। বিক্রয়ের পূর্বে বাড়ির মালিক যদি বাড়িটির বিক্রয় মূল্যের সাথে আসবাবের মূল্য অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দেয় তবে সে ক্ষেত্রে আসবাবপত্রের বাজারমূল্য অনুযায়ী মোট বিক্রয়মূল্য বৃদ্ধি পেতে পারে।

কোম্পানির মূল্যায়নের ক্ষেত্রেও আমরা একই পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারি।

কোম্পানির মালিকানা ক্রয়ের পূর্বে এর ব্যালান্সশিটে নগদ অর্থ একটি স্বতন্ত্র পৃথক সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হয়, যা ব্যবসায়ের মোট মূল্যকে বিরূপ প্রভাবিত না করে সহজেই সরানো যেতে পারে।

তবে কম্পিউটার, অফিস আসবাব ইত্যাদির মতো অন্যান্য সম্পদের ক্ষেত্রে ব্যাপারটি এমন নয়, বরং এসকল সম্পদ সরানো হলে সেক্ষত্রে বিক্রেতা বা কোম্পানির পূরবের মালিককে এর জন্য ক্ষতিপূরণ  দিতে হতে পারে।

বাড়ি ক্রয়ের উদাহরণটিতে বিনামূল্যে প্রাপ্ত আসবাবপত্র বিক্রেতার উপহার হিসেবে বিবেচিত হয়েছে, যা বাড়ি মোত ক্রয়মূল্য থেকে বিয়োগ করতে হবে। কারণ, আসবাবপত্র না পেলে বাড়ির নতুন মালিককে পুনরায় আসবাবপত্র ক্রয় করতে হতো যা তার মোট খরচকে আরও বাড়িয়ে দিত। বিনামূল্যে আসবাব পাওয়ার কারণে তার প্রচুর অর্থ সাশ্রয় হবে।

কোম্পানির মালিকানা ক্রয়ের সময় কোম্পানির ব্যালেন্স শীটে থাকা নগদ (স্বল্প-মেয়াদী এবং বিক্রয়যোগ্য তরল সম্পদ) কোম্পানির নতুন মালিক হিসেবে  অর্জন করে থাকেন যা পরবর্তীতে কোম্পানি মালিকানা অর্জনে মোট ব্যয় থেকে বিয়োগ করে মালিকানা হস্তান্তর ব্যয় নির্ধারণ করা হয়।

কেন আমরা এন্টারপ্রাইজ সূত্রে ঋণ বা দায় যুক্ত করব?

উত্তরটি খুবই সহজ। মালিকানা হস্তান্তরের পরে,এরকোম্পানির দায় মালিকের উপর আবর্তিত হয় এবং নতুন মালিককেই তা পরিশোধ করতে হবে। মালিকানা হস্তান্তরের পরে নতুন মালিককে সকল প্রকার দায় ( স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী ঋণ ) পরিশোধ করতে হবে।

Deduct Debt from Enterprise Value

আমরা কেন মাইনোরিটি ইন্টারেস্ট যুক্ত করব?

মাইনোরিটি ইন্টারেস্ট বলতে আমরা মূল কোম্পানির সাবসিডিয়ারি কোম্পানির শেয়ারকে বোঝায় যা প্যারেন্ট কোম্পানির মালিকানাধীন নয়।চ এক্ষেত্রে সাবসিডিয়ারি কোম্পানি হলো সেসকল কোম্পানি যে কোম্পানিগুলিতে প্যারেন্ট কোম্পানির ৫০ শতাংশ বা তার বেশি অংশীদারি রয়েছে।

সুতরাং মাইনোরিটি ইন্টারেস্ট বলতে এমন একটি অংশকে বোঝায় যা কোম্পানির মালিকানাধীন নয়, এবং যার মালিকানা পেতে হলে নতুন মালিক কে আলাদাভাবে অর্থ প্রদান করতে হবে।  এজন্য এটিকে আমাদের এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু মূল্যায়নের সুত্রে আমরা এটি যোগ করে থাকি।

এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু মূল্যায়নের সূত্রে অগ্রাধিকার শেয়ার কেন যুক্ত করব?

অগ্রাধিকার শেয়ারকে  সাধারণ শেয়ারে রূপান্তরিত করা যায় না, তার এটিকে আর্থিক দায় হিসাবে বিবেচনা করা হয় (কারণ অবলোপন করার সময় কোম্পানিকে অগ্রাধিকার শেয়ারের সমপরিমাণ মুল্য পরিশোধ করতে হবে।  যেহেতু কোম্পানিটিকে অগ্রাধিকার শেয়ারের সাথে সম্পৃক্ত দায় পৃথকভাবে পরিশোধ করতে হবে, সেহেতু মালিকানা হস্তান্তর ব্যয় বৃদ্ধি পাবে । তাই, এটি সূত্রে যোগ করা হয়েছে।

ইক্যুইটি ভেল্যু এবং এন্টারপ্রাইজ ভেল্যুর মধ্যে পার্থক্য

আমার বন্ধু তার নতুন অর্জিত বাড়িটি নিয়ে খুশি।

একজন টেকনিক্যাল বিশ্লেষকের ভূমিকা হলো কোম্পানির মালিকানা হস্তান্তরে তার ক্লায়েন্টর খুশি নিশ্চিত করা।

আশা করি, আমাদের আজকের ব্লগের মাধ্যমে ইক্যুইটি ভেল্যু এবং এন্টারপ্রাইজ ভেল্যুর ধারণাটির পরিষ্কারভাবে বোঝাতে সক্ষম হয়েছি ।

উপরোক্ত আলোচনার আলোকে, এই সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারে যে কোম্পানি মূল্যায়নের ক্ষত্রে টেকনিক্যাল বিশ্লেষকরা এন্টারপ্রাইজ ভেল্যুকে বেশী প্রাধানয় দিয়ে থাকেন কারণ এটি ইক্যুইটি ভেল্যুর পাশাপাশি মাইনোরিটি ইন্টারেস্ট, অগ্রাধিকার শেয়ার, নগদ, এবং নগদ সমতুল্য তরল সম্পদ ইত্যাদির মতো অন্যান্য বিভিন্ন উপাদান বিবেচনা করে, যা ইক্যুইটি ভেল্যুর সূত্র ব্যবহার করে কোম্পানি মূল্যায়নের সময় আওতাভুক্ত করা হয় না।

ইক্যুইটি রিসার্চ, ফিনান্সিয়াল মডেলিং এবং ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকিংয়ের মতো ক্যারিয়ারে আপনাকে ইক্যুইটি ভেল্যু, এন্টারপ্রাইজ ভেল্যু গণনা করা, ব্যবসায়ের মূলধন কাঠামো, ঋণএবং নগদ, ডিস্কাউন্টেড নগদ প্রবাহের মূল্যায়ন ইত্যাদি সম্পর্কে জানতে ও বুঝতে হবে।

কোনও কোম্পানি যখন অন্য কোম্পানিকে কিনতে চায় তখন এন্টারপ্রাইজের মানের উপর গুরুত্ব আরোপ করে।

আপনি কি এমন কোনও সম্পদ কিনেছেন যা  ইক্যুইটি ভেল্যু এবং এন্টারপ্রাইজ ভেল্যুর ধারণাটি পরিষ্কারভাবে ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করে ?

কমেন্টের মাধ্যমে আপনার অভিজ্ঞতা আমাদের সাথে শেয়ার করুন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply